উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বীরভূম জেলা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বর্ধমান বিভাগ-এর অন্তর্গত একটি জেলা এবং জেলাটি ভৌগলিক ভাবে রাঢ় অঞ্চলের অন্তর্গত। জেলাটির পূর্ব দিকে ভাগীরথী নদী প্রবাহিত হয় এবং এটি বীরভূমকে নদীয়া জেলামুর্শিদাবাদ জেলা থেকে বিছিন্ন করেছে। বীরভূমের উত্তর দিকে মুর্শিদাবাদ জেলা পশ্চিমে ঝাড়খণ্ড রাজ্য ও দক্ষিণে পূর্ব বর্ধমান জেলা এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলা অবস্থিত। বীরভূম জেলাকে পশ্চিম সীমান্তে অজয় নদ পূর্ব বর্ধমান জেলা এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলা থেকে বিছিন্ন করেছে।

শহর[সম্পাদনা]

বীরভূম জেলার মানচিত্র
  • 1 বক্রেশ্বর; বক্রেশ্বর ৫১টি শক্তিপীঠের অন্যতম এবং হিন্দুদের একটি গুরুত্বপূর্ণ তীর্থ। একারনে অজস্র মন্দির গড়ে উঠেছে বক্রেশ্বরে। কথিত আছে এখানের পড়েছে দেবীর ত্রিনয়ন।
  • 2 ফুল্লরা; বীরভূম জেলার লাভপুর শহরের কাছে একটি মন্দির কেন্দ্রিক জনপদ।
  • 3 কঙ্কালীতলা; কঙ্কালীতলা একটি শক্তিপীঠ। হিন্দু বিশ্বাস অনুসারে, দক্ষযজ্ঞের পর এখানে দেবী পার্বতীর কঙ্কাল পড়েছিল।
  • 4 কেন্দুলী (জয়দেব কেন্দুলি) দ্বাদশ শতাব্দীর সংস্কৃত কবি জয়দেবের জন্মস্থান, পুরানো মন্দির ও মেলার জন্য বিখ্যাত
  • 5 লাভপুর; তারাশঙ্কর বন্দোপাধ্যায়ের জন্মস্থান ও ৫১ পীঠের একটি শক্তিপীঠ হিসাবে তীর্থস্থানের জন্য বিখ্যাত৷
  • 6 নলহাটি; এই শহরের নলহাটেশ্বরী মন্দির হিন্দুদের একটি বিখ্যাত তীর্থ। শহরটি হিন্দুদের ৫১ শক্তিপীঠের অন্যতম।
  • 7 নানূর; চণ্ডীদাস রামির জন্মস্থান, সংস্কৃত কবি, সম্ভবত ১৪তম শতাব্দীর
  • 8 সাঁইথিয়া; ময়ূরাক্ষী নদীর তীরে অবস্থিত শহরটি ভারতীয় উপমহাদেশের শক্তিপীঠ গুলোর মধ্যে একটি এবং নন্দিকেশ্বরী মন্দির-এর জন্য প্রসিদ্ধ।
  • 9 শান্তিনিকেতন; বোলপুর শহরের নিকট অবস্থিত একটি আশ্রম ও শিক্ষাকেন্দ্র। ১৮৬৩ খ্রিষ্টাব্দে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পিতা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর নিভৃতে ঈশ্বরচিন্তা ও ধর্মালোচনার উদ্দেশ্যে বোলপুর শহরের উত্তর-পশ্চিমাংশে এই আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন।
  • 10 তারাপীঠ; রামপুরহাট শহরের কাছে অবস্থিত একটি ক্ষুদ্র মন্দির নগরী। এই শহর তান্ত্রিক দেবী তারার মন্দির ও মন্দির-সংলগ্ন শ্মশানক্ষেত্রের জন্য বিখ্যাত। হিন্দুদের বিশ্বাসে, এই মন্দির ও শ্মশান একটি পবিত্র তীর্থক্ষেত্র। এই মন্দির শাক্তধর্মের পবিত্র একান্ন সতীপীঠের অন্যতম।

অন্যান্য গন্তব্য[সম্পাদনা]

  • 11 মামা ভাগ্নে পাহাড়; বীরভূম জেলার একমাত্র পাহাড়। এটি ছোট নাগপুর মালভূমির অন্তিম পূর্ব ভাগে অবস্থিত দুবরাজপুর শহরের নিকট অবস্থিত। এই পাহাড়টি মূলত 'গ্রানাইট' শিলা দ্বারা গঠিত। মামা ভাগ্নে পাহাড় বর্তমানে একটি পর্যটনের জায়গা হিসেবে সুবিদিত।

পরবর্তীতে যান[সম্পাদনা]