এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > চট্টগ্রাম বিভাগ > কক্সবাজার জেলা > টেকনাফ উপজেলা > তৈঙ্গা চূড়া

তৈঙ্গা চূড়া

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

তৈঙ্গা চূড়া বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণের উপজেলা টেকনাফের অন্তর্গত সংরক্ষিত বন টেকনাফ বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্যের সর্বোচ্চ চূড়া।

জানুন[সম্পাদনা]

অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এলাকা পরিদর্শনের সেরা সময়। মার্চ থেকে এপ্রিল মাসে পাহাড়ের গাছগাছিল মারা যাওয়ায় সব ফাঁকা হয়ে যায়। এছাড়াও ঝিরির জলধারা ক্ষীণ হয়ে যায়।

কিভাবে যাবেন[সম্পাদনা]

কক্সবাজার জেলা থেকে ৪৮ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং টেকনাফ থেকে উত্তর দিকে ১৫ কিলোমিটার দূরত্বে এর অবস্থান।

কক্সবাজারে বিমান কিংবা বাসে করে যাওয়া যায়। ঢাকা থেকে কক্সবাজার যেতে এসি বাসের জন্য যোগাযোগ: গ্রীন লাইন (ফোন: ৯৩৩৯৬২৩, ৯৩৪২৫৮০); সোহাগ পরিবহন (৯৩৩১৬০০, ৭১০০৪২২); সিল্ক লাইন (৭১০২৪৬১, ৮১০৩৮২)। ভাড়া ৮৫০ থেকে ১২০০ টাকা। নন-এসি বাসের জন্য যোগাযোগ: এস. আলম (৯৩৩১৮৬৪, ৮৩১৫০৮৭)। সেখান থেকে নন-স্টপ টেকনাফগামী বাসে হ্নীলা বাজার। এরপর তৈঙ্গা পাহাড় অভিমুখে ট্রেকিং।

দেখুন[সম্পাদনা]

টেকনাফ বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্যের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ এই তৈঙ্গা চূড়া। এ চূড়াটি অত্যন্ত খাড়া ও টেকারদের জন্য আদর্শস্থানীয়। চূড়া থেকে বঙ্গোপসাগর, নাফ নদী, মায়ানমার সীমান্তের পাহাড়শ্রেণী এবং টেকনাফ বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য এলাকার দৃশ্য অবলোকন করা যায়।

কুঠির আনুমানিক ২০০ ফুট পশ্চিমে প্রবাহিত হয়েছে তৈঙ্গা ঝিরি। ঝিরি পানি স্ফটিক স্বচ্ছ এবং জলজপ্রাণীবৈচিত্র্যে ভরপুর। প্রায় ৭০০ ফুট উচ্চতা থেকে শিলাময় পাহাড়ের ধাপে ধাপে ঝর্ণাটি ক্রমান্বয়ে ঝিরি ধরে প্রবাহিত হয়েছে।

থাকা[সম্পাদনা]

ধারে কাছে হ্নীলা বাজারে সাধারণ মানের হোটেল আছে। ভাড়া ১৫০ থেকে ৩৫০ টাকা প্রতি রাতের জন্য। টেকনাফ শহরে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের মোটলে ভাড়া ৫০০ থেকে ১২৫০ টাকা। এছাড়াও টেকনাফ শহরে সাধারণ মানের হোটেলে ২৫০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে থাকা যায়।