এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

বাঘা মসজিদ

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সুলতান নাসিরউদ্দিন নসরাত শাহ নির্মিত বাঘা মসজিদ বাংলাদেশের প্রাচীনতম মসজিদের মধ্যে একটি। ১৫২৩ খ্রিষ্টাব্দে মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

অবস্থান[সম্পাদনা]

রাজশাহী জেলা সদর থেকে ৪১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে বাঘা উপজেলায় এই মসজিদ অবস্থিত।

পর্যটন[সম্পাদনা]

মসজিদটি ২৫৬ বিঘা জমির ওপর অবস্থিত। মসজিদটিতে ১০টি গম্বুজ, ৪টি মেহরাব আছে। মসজিদটির গাঁথুনি চুন এবং সুরকি দিয়ে। এছাড়া মসজিদ প্রাঙ্গণের উত্তর পাশেই রয়েছে হজরত শাহদৌলা ও তার পাঁচ সঙ্গীর মাজার। মূলত ধর্মীয় ও ঐতিহাসিক কারণেই এর পর্যটনাকর্ষক খ্যাতি সৃষ্টি হয়েছে। তবে এর স্থাপত্যশৈলী সবাইকে মুগদ্ধ করে। এখানে প্রতি বছর প্রচুর লোক সমাগম হয়। বিশেষতঃ সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার অনেক পূন্যার্থী এখজানে আসেন।

যাতায়াত ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

আকাশ পথ[সম্পাদনা]

বাঘা মসজিদে যাওয়ার জন্য প্রথমে আকাশ পথে রাজশাহীতে আসতে হবে। তারপর রাজশাহী থেকে স্থলপথে এখানে যাওয়া যাবে।

নৌপথ[সম্পাদনা]

দূরবর্তী অঞ্চল থেকে বাঘা মসজিদে নৌপথে আসা যাবে না। তবে নিকটবর্তী এলাকা থেকে পদ্মা নদীতে নৌকায় আসা যাবে। তবে নৌযান সহজলভ্য নয়।

স্থলপথ[সম্পাদনা]

বাঘা মসজিদ ভ্রমণের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হলো স্থলপথ। রাজশাহী বা নাটোর শহর থেকে বাঘায় বাস আসা যাবে। তবে কার, মাইক্রো ইত্যাদি গাড়ী ভাড়া করেও যাওয়া যায়।

খাবার ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

শহর থেকে কিছুটা দূরে হওয়ায় এখানে উন্নতমানের খাবার পাওয়া যাবে না। তবে স্থানীয় বেশ কিছু রেস্তোরা আছে।

রাত্রিযাপন করুন[সম্পাদনা]

বাঘায় রাত্রিযাপনের জন্য উন্নতমানের আবাসিক হোটেল নেই।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বিষয়শ্রেণী তৈরি করুন