37.958.3Map mag.png

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
Turkmenistan on the globe (Turkmenistan centered).svg
রাজধানী আশখাবাদ
মুদ্রা Turkmenistan new manat (TMT)
জনসংখ্যা ৬.১ মিলিয়ন (2021)
বিদ্যুৎ ২২০ ভোল্ট / ৫০ হার্জ (NEMA 5-15, Schuko, ইউরোপ্লাগ)
দেশের কোড +993
সময় অঞ্চল ইউটিসি+০৫:০০, Asia/Ashgabat
জরুরি নম্বর 112
গাড়ি চালানোর দিক ডান
উইকিউপাত্তে সম্পাদনা করুন

তুর্কমেনিস্তান মধ্য এশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের একটি প্রজাতান্ত্রিক রাষ্ট্র। এর উত্তরে কাজাকিস্তান ও উজবেকিস্তান, পূর্বে উজবেকিস্তান ও আফগানিস্তান, দক্ষিণে আফগানিস্তান ও ইরান এবং পশ্চিমে কাস্পিয়ান সাগর।

শহর[সম্পাদনা]

আশগাবাত তুর্কমেনিস্তানের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর।

পর্যটন[সম্পাদনা]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

ভূগোল[সম্পাদনা]

তুর্কমেনিস্তান মধ্য এশিয়ার একটি স্থলবেষ্টিত রাষ্ট্র। এর পশ্চিমে কাস্পিয়ান সাগর, দক্ষিণে ইরান ও আফগানিস্তান, উত্তর-পূর্বে উজবেকিস্তান, এবং উত্তর-পশ্চিমে কাজাকিস্তান। তুর্কমেনিস্তানের অধিকাংশ এলাকা সমতল বা ঢেউখেলানো বালুময় মরুভূমি, যার মধ্যে স্থলে স্থলে বালিয়াড়ি দেখতে পাওয়া যায়। দক্ষিণে ইরানের সাথে সীমান্তে রয়েছে পর্বতমালা। কারাকুম মরুভূমির কাছে অবনমিত ভূমি দেখতে পাওয়া যায়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পূর্বে দেশটি তুর্কমেন সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র নামে পরিচিত ছিল ও সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ ছিল। ১৯৯১ সালে এটি স্বাধীনতা ঘোষণা করে এবং ১৯৯২ সালে নতুন সংবিধান কার্যকর করে।

ভাষা[সম্পাদনা]

তুর্কমেন ভাষা এবং রুশ ভাষা তুর্কমেনিস্তানের সরকারি ভাষা। তুর্কমেন ভাষাতে এখানকার জনগণের প্রায় ৮০% এবং রুশ ভাষাতে প্রায় ৮% কথা বলেন। এখানে প্রচলিত অন্যান্য ভাষার মধ্যে আছে বেলুচি ভাষা ও উজবেক ভাষা।

খাদ্য[সম্পাদনা]

প্লভ (পিলাফ) হচ্ছে প্রধান খাবার, দৈনন্দিন খাদ্য, যা উৎসব উদযাপনে পরিবেশিত হয়। এটি একটি ওলন্দাজ চুলার অনুরূপ একটি বড় পেটা লোহার কড়াইয়ে মাটন, গাজর এবং ভাজা চাল দিয়ে প্রস্তুত করা হয়। ম্যান্টি তৈরীতে ব্যবহৃত হয় ছাগলের মাংস, পেঁয়াজ বা কুমড়া দিয়ে। শুরপা হচ্ছে মাংস এবং শাকসব্জি দিয়ে তৈরী স্যুপ। রেস্তোরাঁ এবং বাজারে বিভিন্ন ধরণের পুর ভরা খাবার পাওয়া যায়, যেমন সোমসা, গুটাপ এবং ইশলীক্লি। এগুলো ভ্রমণকারী এবং ট্যাক্সি ড্রাইভারদের কাছে জনপ্রিয়। কারণ এগুলো দ্রুত চলার পথে দ্রুতই খাওয়া যায়। প্রায়ই রাস্তাঘাট ও স্ট্যাণ্ডে বিক্রি হয়। তুর্কমেনি রান্না সাধারণত মশলা বা মশলাজাতীয় দ্রব্য ব্যবহার করে না এবং সুগন্ধি জন্য তুলাবীজের তেল অধিক পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। শাশলীক, স্ক্রু আকারের মাটন, শুয়োরের মাংস, মুরগি বা কখনও কখনও মাছ কাঠকয়লার আগুনে গ্রিল করা হয় এবং কাঁচা কাটা পেঁয়াজ এবং একটি বিশেষ সিরকা ভিত্তিক সস দিয়ে সাজিয়ে, রেস্তোরাঁয় পরিবেশিত হয় এবং প্রায়ই পথপার্শ্বে বিক্রি হয়। তুর্কমেনিস্তার রেস্তোরাঁ প্রধানত রাশিয়ান খাবার যেমন পেলম্যানি, গ্রচস্কা, গলুবসি এবং মেয়েরাইজ-ভিত্তিক স্যালাদ পরিবেশন করে। কিছু অঞ্চলে ল্যাগম্যান নামক উইগুর নুডলস পাওয়া যায়।

পানীয়[সম্পাদনা]

মধ্য এশিয়ার বাকি দেশের মত সবুজ চা এখানকারও প্রাথমিক পানীয়, যা সব সময় পান করা হয়। উপভোগ করে। তুর্কমেনিয়ার ভাষাতে "চাই" (চা) খাবার খাওয়া অথবা বেড়াতে গিয়ে বসাকে বোঝায়। দাশোগুজ অঞ্চলে, মাঝে মাঝে কাজাখ শৈলীতে দুধ চা তৈরী করা হয়। সকালের নাস্তায় কেফিরের মত ঘন দইয়ের পানীয় গেটিক পরিবেশন করা হয়। কখনো কখনো এটা বোরেক বা ম্যান্টিতে প্রথাগত টক দইয়ের বদলে ব্যবহার করা হয়। তবে চাল নামক উটের দুধ থেকে তৈরী পানীয় সুপরিচিত। এটা সাদা পানীয়, টক স্বাদের এবং মধ্য এশিয়ায় জনপ্রিয় বিশেষ করে তুর্কমেনিস্তানে। নির্দিষ্ট প্রস্তুত প্রণালীর কারণে এটা শুধুমাত্র নির্দিষ্ট অঞ্চলে প্রস্তুত হয়। বিদেশীদের খাওয়ানোর জন্য চাল রপ্তানী খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার।

বিষয়শ্রেণী তৈরি করুন