বিষয়বস্তুতে চলুন

উইকিভ্রমণ থেকে

মেদিনীপুর হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের একটি অঞ্চল। এটি ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর ও পূর্ব মেদিনীপুর জেলা নিয়ে গঠিত।

শহর[সম্পাদনা]

মানচিত্র
মেদিনীপুর (অঞ্চল) মানচিত্র

ঝাড়গ্রাম[সম্পাদনা]

  • 1 ঝাড়গ্রাম — বনভূমি এবং অসাধারণ স্থানের জন্য বিখ্যাত

পশ্চিম মেদিনীপুর[সম্পাদনা]

  • 3 খড়গপুর ও মেদিনীপুর — পশ্চিম মেদিনীপুরের সদর দফতর, ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আইআইটি) খড়গপুর এই অঞ্চলে অবস্থিত
  • 4 চন্দ্রকোণা — মন্দিরের শহর, প্রয়াগ ফিল্ম সিটির অবস্থান

পূর্ব মেদিনীপুর[সম্পাদনা]

  • 5 তমলুক (তাম্রলিপ্ত) — পূর্ব মেদিনীপুর সদর দপ্তর
  • 6 কাঁথি — এই অঞ্চলের সৈকত রিসর্টের প্রবেশদ্বার
  • 7 দীঘা — একটি জনপ্রিয় সমুদ্রসৈকত
  • 8 গেঁওখালি — হুগলি, রূপনারায়ণ ও দামোদর নদীর সঙ্গমস্থল
  • 12 মহিষাদল — মহিষাদল রাজবাড়ির জন্য বিখ্যাত

অন্যান্য গন্তব্যস্থল[সম্পাদনা]

  • 1 মোঘলমারি — ৬ থেকে ১২ শতকের মধ্যে নির্মিত একটি বৌদ্ধমঠ সহ একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান

জানুন[সম্পাদনা]

মেদিনীপুর অঞ্চল পশ্চিমবঙ্গের একটি উদীয়মান শিক্ষাগত, অর্থনৈতিক এবং পর্যটন কেন্দ্র। এখানে রয়েছে হলদিয়া বন্দর, যা একটি প্রধান সমুদ্রবন্দর। এটি কলকাতা বন্দরের সহায়ক হিসেবে কাজ করে। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আইআইটি) খড়গপুরও এই অঞ্চলে অবস্থিত।

ঐতিহাসিক মতে মেদিনীপুরের দাঁতন (তৎকালীন দন্দভুক্তি) এলাকায় রাজা শশাঙ্কের রাজত্বের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। ঐ সময়কালে তাম্রলিপ্ত সাম্রাজ্যের অংশ ছিল এই জেলার অনেকাংশ। ১০২১-১০২৩ খ্রিস্টাব্দে চোল রাজা রাজেন্দ্র চোলের আক্রমণের পর তাম্রলিপ্ত সাম্রাজ্যের পতন হয়। এরপর ১১৩৫ খ্রিস্টাব্দে রাজা অনন্ত বর্মণ মেদিনীপুরের (তৎকালীন মিধুনপুর) দখল নেন। খ্রিস্টীয় ১৩০০-১৫০০ শতাব্দীতে সারা বাংলায় মুসলিম সাম্রাজ্যের বিস্তার হলেও বিষ্ণুপুরের হিন্দু রাজা এবং জমিদারেরা মেদিনীপুরের সুবিশাল অংশে হিন্দু সাম্রাজ্য ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন। ১৫০০ শতাব্দীর শুরুতে মেদিনীপুর মুঘল সাম্রাজ্যের অধীনে চলে আসে। ১৬৮৭ খ্রিস্টাব্দে জব চার্নক মেদিনীপুরের হিজলিতে আসেন। ১৭০০ শতাব্দীর মধ্যান্তরে মারাঠারা একাধিক বার মেদিনীপুরে আক্রমণ ও লুঠতরাজ করে। ১৭৫২ খ্রিস্টাব্দে মেদিনীপুরের একাংশ মারাঠা সাম্রাজের অধীনে চলে যায়। এরপর ব্রিটিশ আমলে মেদিনীপুর একাধিক কৃষক বিদ্রোহ ও স্বাধীনতা সংগ্রামী আন্দোলনের সাক্ষী থেকেছে।

ব্রিটিশ রাজের সময় মেদিনীপুর ছিল রাজনৈতিক আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু। এটি ছিল ক্ষুদিরাম বসুর জন্মস্থান, জনাব বসু ছিলেন একজন তরুণ স্বাধীনতা কর্মী যাকে ১৯০৮ সালে ফাঁসি দেওয়া হয়। আরেক স্বাধীনতা কর্মী, মাতঙ্গিনী হাজরা, ১৯৪৩ সালে বন্দুকের গুলিতে নিহত হন। ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় "তাম্রলিপ্ত জাতীয় সরকার" নামে তনলুকে একটি সমান্তরাল সরকার গঠিত হয়েছিল।

ভূগোল[সম্পাদনা]

দক্ষিণ-পশ্চিমবঙ্গের প্রাকৃতিক দৃশ্য বৈচিত্র্যময়। বাঁকুড়া থেকে বালাসোর পর্যন্ত রাস্তাটি অঞ্চল দুটিকে প্রাকৃতিক বিভাগে বিভক্ত করেছে। এই রাস্তার পূর্ব দিকে মাটি উর্বর পলি এবং এলাকা সমতল। পশ্চিমে, ছোট নাগপুর মালভূমি ধীরে ধীরে নিচের দিকে ঢালু হয়ে ল্যাটেরাইট শিলা এবং মাটির সাথে একটি অসাধারণ এলাকা তৈরি করে। এই অঞ্চলের উপকূলীয় অঞ্চলগুলো মাঝে মাঝে ঘূর্ণিঝড় এবং টর্নেডো দ্বারা প্রভাবিত হয়।

কীভাবে যাবেন[সম্পাদনা]

রেলপথ[সম্পাদনা]

প্রধান রেল স্টেশনগুলি হল দিঘা, খড়গপুর এবং তমলুক।

বাস[সম্পাদনা]

জাতীয় সড়ক ১৬ (NH 16) খড়গপুর, কোলাঘাট এবং পাঁশকুড়া দিয়ে অতিক্রম করেছে। এনএইচ ১১৬, এনএইচ ১৬-এর একটি শাখা সড়ক, যেটি তমলুক এবং হলদিয়ার উপর দিয়ে গিয়েছে। এর শাখা সড়ম, এনএইচ ১১৬বি, কন্টাই এবং দিঘার উপর দিয়ে গিয়েছে।

কীভাবে ঘুরবেন[সম্পাদনা]

দেখুন ও করুন[সম্পাদনা]

আহার ও পানীয়[সম্পাদনা]

সাবধানে থাকুন[সম্পাদনা]

মেদিনীপুর জঙ্গলমহল অঞ্চলের অন্তর্গত, যা নকশাল-মাওবাদী আন্দোলনের জন্য একসময় বেশ পরিচিত ছিল। সুতরাং এই অঞ্চলে ভ্রমণের সময় বেশি রাতে হোটেল বা লজের বাইরে না থাকাই ভালো।

পরবর্তী গন্তব্য[সম্পাদনা]