উইকিভ্রমণ থেকে
ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা > সরাইল উপজেলা

সরাইল উপজেলা

পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


সরাইল উপজেলা বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অন্তর্গত একটি প্রশাসনিক এলাকা। ২৪°০০´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°১৫´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত এই উপজেলাটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হতে ১২ কিলোমিটার দূরে জেলার উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত। এর উত্তরে - নাসিরনগর উপজেলা ও মেঘনা নদী, পশ্চিমে - আশুগঞ্জ উপজেলা, মেঘনা নদী,  কিশোরগঞ্জের ভৈরব ও বাজিতপুর উপজেলা, পূর্বে-নাসিরনগর ও বিজয়নগর উপজেলা এবং দক্ষিণে - ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা।

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

২১৫.২৮ বর্গ কিঃমিঃ আয়তনের উপজেলাটর পাশ দিয়ে বয়ে গেছে মেঘনা,তিতাস ও লাহুর নদী। ঢাকা-সিলেট ও কুমিল্লা সিলেট মহাসড়কের পাশে এর অবস্থা।

সরাইলের গ্রে-হাউন্ড কুকুর এক ধরণের শিকারি জাতের কুকুর। স্থানীয়ভাবে হাউন্ড কুকুর নামেও পরিচিত,তাছাড়া দেশব্যাপী 'সরাইলের কুকুর' নামেও সুপরিচিত। শিকারি বৈশিষ্ঠ্যের জন্য এই কুকুর দেশে-বিদেশে বিখ্যাত। সরাইল গ্রে-হাউন্ডের লেজ নিচের দিকে ঝুলে এবং লেজটি চিকন হয়। গ্রে-হাউন্ড জাতের কুকুরের কান ও লেজ লম্বা হয়। এদের মুখটা লম্বাটে ধরণের হয় ও গায়ে ডোরাকাটা দাগ রয়েছে। অন্যান্য প্রজাতির কুকুরের মত এটা আহ্লাদি নয়। এই কুকুর অত্যন্ত হিংস্র, এর নজর তীক্ষ ও দ্রুত দৌড়াতে পারে। এই জাতের পুরুষ কুকুরের উচ্চতা হয় ২৫-২৮ ইঞ্চি এবং ওজন ২৩-৩৩ কেজি আর নারী কুকুরের উচ্চতা হয় ২৩-২৬ ইঞ্চি এবং ওজন ১৮-২৮ কেজি। প্রতি ঘন্টায় এই কুকুর প্রায় ৫৫ কিলোমিটার পর্যন্ত দৌড়াতে পারে। এই কুকুর গড়ে ৮-১৪ বছর বাঁচে। এই কুকুরের রং দুই ধরনের হয় বাদামী-সাদা ও সাদা-কালো। ধারণা করা হয় মধ্যপ্রাচ্যের বণিকদের সাথে আনা আরবি জাতের কুকুর, যেমন সাইট হাউন্ড,সালুকি,আফগানি হাউন্ড এর সাথে ব্রিটিশদের গ্রে হাউন্ড এর সংমিশ্রণে এক জাতের কুকুরের উৎপত্তি হয় এবং সরাইলের এক দেওয়ান এজাতের কুকুর নিয়ে আসেন, তারপর বুনো জাতের কুকুরের সাথে মিলনে সরাইল হাউন্ডের উৎপত্তি। এর উৎপত্তি নিয়ে আরও কয়েকটি কিংবদন্তি রয়েছে, যেমন - সরাইলের এক দেওয়ান হাতি নিয়ে সরাইল পরগনা থেকে ভারতের কলকাতা যাচ্ছিলেন। পথে একটি কুকুর দেখে তার অনেক পছন্দ হয়, কিন্তু কুকুরের মালিক (মতান্তরে ইংরেজ) এটি কিছুতেই বিক্রি করতে চাননি। তারপর দেওয়ান নিজের হাতির বিনিময়ে মালিকের কাছ থেকে কুকুরটি কিনে নেন। পরে কুকুরটি শিয়ালের সঙ্গে মিলন করে, যার ফলে সৃষ্টি বর্তমান এই জাতের কুকুরের। তাছাড়া আরও জনশ্রুতি আছে যে, সরাইলের এক দেওয়ান হাতি নিয়ে শিকারের জন্য বনে যান। সঙ্গে ছিল তার মাদী কুকুর। তারপর কুকুরটি বনে হারিয়ে যায়। কুকুরটি বনে বাঘের সঙ্গে মিলন করে এবং বাঘের সঙ্গে মিলনের ফলেই এই গ্রে-হাউন্ড কুকুরের উৎপত্তি। গবেষকদের মতে এরাবিয়ান শিকারি কুকুর,ইংরেজ গ্রে-হাউন্ড ও দেশি বন্য কুকুরের মিশ্রণে এই জাতের কুকুরের উৎপত্তি।

সরাইল মোরগ লড়াইয়ের জন্য বিখ্যাত। এই মোরগ লড়াইয়ে ব্যবহার করা হয় 'হাচলি মোরগ' যা শক্তিশালী দৈহিক গঠনের জন্য বিখ্যাত। এটি 'আসলি' বা আসিল নামেও উচ্চারন করা হয়। 'আসিল' শব্দের অর্থ আসল। 'আসিল মোরগ লড়াই' এর অর্থ 'আসল মোরগ লড়াই'। কিংবদন্তি অনুসারে সরাইলের দেওয়ানরা ৪০০ বছর আগে ইরান থেকে এই জাতের মোরগ এনেছিল। আবার অনেকের মতে মুঘল আমলে ভারতের রায় বেরেলি থেকে এ জাতের মোরগ আনা হয়।


নিকটবর্তী দর্শনীয় স্থান ও স্থাপনা[সম্পাদনা]

  •  আড়িফাইল মসজিদ;
  •  হাতিরপুল;
  •  সরাইল শাহী জামে মসজিদ;
  •  হাটখোলা মসজিদ (আরফান নেছার মসজিদ);
  •  অরুয়াইল নদীঘাট;
  •  ধরন্তী;
  •  আয়েত উল্লাহ শাহ এর মাজার;
  •  শ্রী শ্রী কালাচাঁদ বাবাজীর মন্দির;
  •  মুক্তিযোদ্ধে নিহত ৭১ জন শহীদের নামে নির্মিত স্মৃতিসৌধ;
  •  কালিকচ্ছ দয়াময় আনন্দধাম;
  •  দেওয়ান শাহবাজ এর ঐতিহাসিক কুপ;
  •  প্রাচীন বৌদ্ধ মন্দির;
  •  বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তর;
  •  ক্যামেলিয়া ডানকান ফাউন্ডেশন অর্কিড প্রজেক্ট।