এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহার

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

নন্দনকানন বৌদ্ধ বিহার বাংলাদেশের চট্টগ্রামের নন্দনকাননে অবস্থিত। বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতি ১৮৮৯ সালে এ বিহারটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। এ বিহার বাংলাদেশের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম পূণ্যস্থান হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

জানুন[সম্পাদনা]

প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিহারের অধ্যক্ষের দায়িত্বে ছিলেন পণ্ডিত-উ-ধম্মবংশ মহাথের। দ্বিতীয় অধ্যক্ষ - শ্রীমৎ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান মহাথের, তৃতীয় - অধ্যাপক শীলাচার শাস্ত্রী, চতুর্থ - শ্রীমৎ সুবোধিরত্ন মহাথের, পঞ্চম - শ্রীমৎ জ্যোতিঃপাল মহাথের এবং ষষ্ঠ অধ্যক্ষের দায়িত্বে রয়েছেন শ্রীমৎ জ্ঞানশ্রী মহাস্থবির।

কি দেখবেন[সম্পাদনা]

২০০৫ সালে বিহারে প্রবেশের দুই পার্শ্বে অধ্যক্ষ শ্রীমৎ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান মহাথের এবং অধ্যক্ষ অধ্যাপক শীলাচার শাস্ত্রী মহাস্থবিরের স্মৃতিমন্দির প্রতিষ্ঠা করা হয়। এছাড়াও, বিহারের মূল ভবনের দ্বিতীয় তলায় গৌতম বুদ্ধের আসনের নীচে দুইপাশে পণ্ডিত-উ-ধম্মবংশ মহাথের এবং শ্রীমৎ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান মহাথেরের আবক্ষ মূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়।

চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহারে বিভিন্ন দূর্লভ পাণ্ডুলিপি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার আছে। এটির নাম চিন্তামনি গ্রন্থাগার। এখানে তালপাতার পাণ্ডুলিপি সংরক্ষিত আছে। এই সংগ্রহশালায় পালি ভাষা, বর্মী ভাষা, সংস্কৃত ভাষায় রচিত প্রাচীন ধর্মীয় শাস্ত্র রয়েছে। শাস্ত্রীয় সাহিত্য এবং তালপাতায় রচিত শিল্পকর্ম গ্রন্থাগারকে যথেষ্ট সমৃদ্ধ করেছে।

এছাড়াও, বৌদ্ধ বিহারে বৌদ্ধ হোস্টেল, ধম্মবংশ ইন্সটিটিউট, চিকিৎসাকেন্দ্র রয়েছে।