উইকিভ্রমণ থেকে
ভারতের মানচিত্রে মহারাষ্ট্র

পশ্চিম ভারতে অবস্থিত মহারাষ্ট্র (মারাঠি: महाराष्ट्र মহারাষ্ট্র্অ) আয়তনে ভারতের তৃতীয় সবচেয়ে বড় রাজ্য এবং জনসংখ্যায় দ্বিতীয়। এটি পশ্চিম উপকূল থেকে দাক্ষিণাত্য মালভূমি পর্যন্ত বিস্তৃত এবং অঞ্চলভেদে এর জলবায়ু ভিন্ন। মহারাষ্ট্রে ভারতের সবচেয়ে শিল্পায়িত এলাকা মুম্বইপুণে বলয় বর্তমান।

অঞ্চল[সম্পাদনা]

মানচিত্র
মহারাষ্ট্রের মানচিত্র
  মারাঠওয়াড়া
মহারাষ্ট্রের মধ্যবর্তী অংশ। ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান অজন্তা ও ইলোরা গুহা এখানে অবস্থিত।
  উত্তর কোঙ্কণ
বৈচিত্র্যপূর্ণ অঞ্চল, যেখানে সমুদ্র ও পর্বত থেকে শহরাঞ্চল সবই বর্তমান। এখানে ভারতের বাণিজ্যকেন্দ্র মুম্বই অবস্থিত।
  উত্তর মহারাষ্ট্র
  পুণে (জেলা)
মারাঠি সংস্কৃতির কেন্দ্র। এখানে শিবাজী আমলের বিভিন্ন পাহাড়ি দুর্গ বর্তমান।
  রায়গড়
  দক্ষিণ কোঙ্কণ
উত্তর কোঙ্কণের তুলনায় কম আধুনিকীকৃত, কিন্তু এখানে বিভিন্ন সিন্ধুদুর্গরত্নগিরির মতো পর্যটন কেন্দ্র বর্তমান।
  দক্ষিণ মহারাষ্ট্র
  বিদর্ভ
মহারাষ্ট্রের সবচেয়ে পূর্বের অঞ্চল।

প্রবেশ[সম্পাদনা]

ছত্রপতি শিবাজী মহারাজ টার্মিনাস, ভারতের প্রাচীনতম রেলওয়ে স্টেশনের অন্যতম।

মহারাষ্ট্রের সমস্ত শহর রেল, বিমান ও সড়কপথে দ্বারা সংযুক্ত।

আকাশপথে[সম্পাদনা]

মহারাষ্ট্রে তিনটি প্রধান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বর্তমান:

  1. ছত্রপতি শিবাজী মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, মুম্বই (BOM আইএটিএ): রাজ্যের প্রধান বিমানকেন্দ্র এবং এটি ভারতের অন্যতম প্রবেশদ্বার হিসেবে কাজ করে। মুম্বই বিমান মাধ্যমে বিশ্বের সমস্ত প্রধান শহর এবং ভারতের বেশিরভাগ শহরের সঙ্গে সংযুক্ত। লন্ডন, প্যারিস, ফ্রাঙ্কফুর্ট, সোল, ব্যাঙ্কক, হংকং, সাংহাই, আটলান্টা ও অন্যান্য শহরের সঙ্গে আন্তর্জাতিক ননস্টপ উড়ান বর্তমান।
  1. পুণে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, পুণে (PNQ আইএটিএ): মূলত ভারতের প্রধান শহরের সঙ্গে সংযুক্ত।
  1. ডা. বাবাসাহেব আম্বেদকর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, নাগপুর (NAG আইএটিএ): ভারতের অন্যান্য শহরের সঙ্গে ভালভাবে সংযুক্ত। কিছু আন্তর্জাতিক উড়ান বর্তমান।

এছাড়া মহারাষ্ট্রের আওরঙ্গবাদ, নাশিক, কোলাপুর, নন্দেড ও শিরডিতে ছোট বিমানবন্দর বর্তমান। এর মধ্যে একমাত্র আওরঙ্গবাদ বিমানবন্দরে (IXU আইএটিএ) নিয়মিত উড়ান বর্তমান, অন্যান্য সমস্ত বিমানবন্দরে কেবল আকস্মিক উড়ান বর্তমান। আপনি যদি আকাশপথে এইসব শহরে যেতে চান, তবে আপনাকে এইসব বিমানবন্দরের সময়সূচির সম্বন্ধে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে, কারণ এইসব শহরে বিমান চলাচল খুব কম। সড়ক বা রেলপথে এইসব শহরে আসা খুবই সহজ।