উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন


ঝালকাঠি জেলা বাংলাদেশের একটি জেলা। এটি বরিশাল বিভাগ এর অন্তর্গত। এ জেলার মোট আয়তন ৭৫৮.০৬ বর্গ কিমি। ঝালকাঠির উত্তর-পূর্বে বরিশাল,দক্ষিণে বরগুনা ও বিশখালি নদী এবং পশ্চিমে লোহাগড়া ও পিরোজপুর জেলা অবস্থিত। এই জেলাটি কাঁঠালিয়া, ঝালকাঠি সদর, নলছিটি এবং রাজাপুর - এই চারটি উপজেলার সমন্বয়ে গঠিত।

কিভাবে যাবেন?[সম্পাদনা]

রাজধানী ঢাকা থেকে জেলা সদরের দূরত্ব ১৮২ কিলোমিটার। এই জেলাটি একটি উপকূলী ও নদীবহুল অঞ্চল হওয়ায় এখানকার যেকোনো স্থানে আসার জন্য নৌপথ সবচেয়ে সুবিধাজনক পরিবহন ব্যবস্থা। তবে, সড়ক পথেও এখানে আসা সম্ভব; সেক্ষেত্রে ফেরী পারাপার হতে হবে। ঝালকাঠিতে রেল যোগাযোগ বা বিমান বন্দর নেই বলে এই দুটি মাধ্যমে এখানকার কোনো স্থানে আসা যায় না।

স্থল পথে[সম্পাদনা]

ঢাকা থেকে ঝলকাঠির উদ্দেশ্যে যেসব গাড়ি ছেড়ে যায় সেগুলো হল এসি চেয়ার কোচ, হিনো চেয়ার কোচ ও নরমাল চেয়ার কোচ। এসি চেয়ার কোস ও হিনো চেয়ার কোচগুলো গুলো ফেরী পারাপার এবং নরমাল চেয়ার কোসগুলো লঞ্চ পারাপার। এছাড়া লোকাল পথেও ঝালকাঠি যাওয়া যায়।

কাটা লাইনে ঝালকাঠি যেতে চাইলে গুলিস্তান থেকে যেসব গাড়িগুলো ছেড়ে যায় সেগুলো শুধু মাওয়াঘাট পর্যন্ত যায়। তারপর যাত্রীগণকে গাড়ি থেকে নেমে লঞ্চে অথবা স্পীড বোটে কাওরাকান্দি যেতে হয়। লঞ্চে পদ্মা নদী পার হতে হলে ১.৩০ মিনিট থেকে ২.০০ ঘণ্টা সময় লাগে। লঞ্চ ভাড়া ৩০ টাকা। স্পীড বোটে নদী পার হলে আনুমানিক ২০মিনিট সময় লাগে। স্পীড বোটে ভাড়া ১৫০ থেকে ২০০ টাকা। কাওরাকান্দি থেকে বাস অথবা মাইক্রোবাসে বরিশাল যাওয়া যায়। বাসে ডাইরেক্ট বরিশাল ভাড়া ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা। মাইক্রোবাসে ডাইরেক্ট বরিশাল ভাড়া ১৮০-২০০ টাকা। এছাড়া কাওরাকান্দি থেকে ভাংগা পর্যন্তও বাসে যাওয়া যায়। কাওড়াকান্দি থেকে ভাংগা পর্যন্ত বাস ভাড়া-৪০, ভাংগা থেকে বরিশাল পর্যন্ত বাস ভাড়া- ৮০ থেকে ১০০ টাকা, বরিশাল থেকে ঝলকাঠি ভাড়া ৪০ টাকা।

  • জেলা সদর হতে কাঠালিয়া উপজেলায় বাস ও লঞ্চ যোগে যাওয়া যায় এবং এতে ভাড়া লাগে ৪০-৮০ টাকা;
  • জেলা সদর হতে নলছিটি উপজেলায় সিএনজি, টেম্পু, বাস, লঞ্চ ও স্টীশার যোগে যাওয়া যায় এবং এতে ভাড়া লাগে ৩০-১০০ টাকা;
  • জেলা সদর হতে রাজাপুর উপজেলায় রিক্সা, টেম্পু ও বাস যোগে যাওয়া যায় এবং এতে ভাড়া লাগে ১৫-৫০ টাকা।

নৌপথে[সম্পাদনা]

ঢাকা সদরঘাট নদী বন্দর লঞ্চ টার্মিনাল থেকে ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে যেসব লঞ্চ ছেড়ে যায় সেগুলো হল এম ভি টিপু-০, এম ভি টিপু-১ সুরভী-৭, সুরভী-৮, পারাবত-২, পারাবত-৯, পারাবত-১১।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  • সুজাবাদ কেল্লা,
  • ঘোষাল রাজবাড়ী,
  • পুরাতন পৌরসভা ভবন,
  • মাদাবর মসজিদ,
  • সুরিচোরা জামে মসজিদ।
  • 1 ভাসমান পেয়ারা বাগান, আটঘর - নবগ্রাম রোড, আটঘর কুড়িয়ানা ইউনিয়ন (মূল শহর হতে নৌকায় / রিকশায়)। Simple icon time.svg 7:00 - 11:00Linecons banknote.svg 0৳

জরুরি নম্বরসমূহ[সম্পাদনা]

  • ওসি, কাঠালিয়াঃ মোবাইল: ০১৭১৩-৩৭৪ ২৮৯;
  • ওসি, ঝালকাঠিঃ মোবাইল: ০১৭১৩-৩৭৪ ২৮৬;
  • ওসি, নলছিটিঃ মোবাইল: ০১৭১৩-৩৭৪ ২৮৭;
  • ওসি, রাজাপুরঃ মোবাইল: ০১৭১৩-৩৭৪ ২৮৮।