এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > বরিশাল বিভাগ > পিরোজপুর জেলা

পিরোজপুর জেলা

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


পিরোজপুর জেলা বাংলাদেশের একটি জেলা। এটি বরিশাল বিভাগ এর অন্তর্গত। বাংলাদেশের দক্ষিণবঙ্গ নামে পরিচিত বরিশাল বিভাগের একটি জেলা হচ্ছে পিরোজপুর। সুন্দরবনের কোলঘেঁষা কালীগঙ্গা, বলেশ্বর, দামোদর, সন্ধ্যানদী বিধৌত প্রাকৃতিক সবুজের লীলাভূমি পিরোজপুর জেলা। ১৮৫৯ সালের ২৮ অক্টোবর পিরোজপুর মহকুমা স্থাপিত হয়। পিরোজপুর মহাকুমা ১৯৮৪ সালে জেলায় রূপান্তরিত হয়। ঢাকা থেকে পিরোজপুর জেলায় যেতে সময় লাগে ১০/১২ ঘন্টা। পিরোজপুর জেলার উত্তরে গোপালগঞ্জ জেলা; উত্তর-পূর্বে বরিশালঝালকাঠী জেলা; দক্ষিণ-পশ্চিমে বাগেরহাট জেলা এবং দক্ষিণ-পূর্বে বরগুনা জেলা অবস্থিত। এই জেলাটি ভান্ডারিয়া, কাউখালী, মঠবাড়িয়া, নাজিরপুর, পিরোজপুর সদর, নেছারাবাদইন্দুরকানী - এই সাতটি উপজেলার সমন্বয়ে গঠিত।

কিভাবে যাবেন?[সম্পাদনা]

রাজধানী ঢাকা থেকে পিরোজপুর সদরের দূরত্ব সড়ক পথে ১৮৫ কিলোমিটার ও জলপথে ২৫৯ কিলোমিটার আর বিভাগীয় শহর বরিশাল থেকে ৫০ কিলোমিটার। এই জেলাটি একটি উপকূলী ও নদীবহুল অঞ্চল হওয়ায় এখানকার যেকোনো স্থানে আসার জন্য নৌপথ সবচেয়ে সুবিধাজনক পরিবহণ ব্যবস্থা। তবে, সড়ক পথেও এখানে আসা সম্ভব; সেক্ষেত্রে ফেরী পারাপার হতে হবে। পিরোজপুরে রেল যোগাযোগ বা বিমান বন্দর নেই বলে এই দুটি মাধ্যমে এখানকার কোনো স্থানে আসা যায় না।

স্থল পথে[সম্পাদনা]

সড়কপথে ঢাকা থেকে পিরোজপুর যাওয়ার পথে মাঝপথে বৃহত্তর পদ্মা নদীর অবস্থান হওয়ার কারণে ঢাকা থেকে সরাসরি পিরোজপুরের কোনো বাস যোগাযোগ নেই। ফেরি পারাপার সার্ভিসের পাশাপাশি লঞ্চ বা স্পিডবোটের মাধ্যমে নদী পারাপারের মাধ্যমে পিরোজপুর যাওয়া যায়।

ঢাকার সায়েদাবাদ ও গাবতলী উভয় বাস টার্মিনাল থেকেই ঢাকা-পিরোজপুর রুটের ফেরি পারাপার গাড়ি রয়েছে। সায়েদাবাদ থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসগুলো মাওয়া সংলগ্ন পদ্মা নদী পার হয়ে পিরোজপুর যাতায়াত করে। আর গাবতলী থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসগুলো পাটুরিয়া সংলগ্ন পদ্মা নদী পার হয়ে পিরোজপুর রুটে চলাচল করে।

জল পথে[সম্পাদনা]

ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে প্রতিদিন একাধিক যাত্রীবাহী লঞ্চ ছেড়ে যায়। সড়কপথের তুলনায় নদীপথে লঞ্চে যাতায়াত আরামদায়ক। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬:০০ টা থেকে শুরু করে রাত ৮:৩০ টা পর্যন্ত লঞ্চগুলো ছেড়ে যায়। পরদিন সকাল ৮:০০ টা থেকে ১০:০০ টার মধ্যে লঞ্চগুলো পিরোজপুর গিয়ে পৌছায়। পিরোজপুর হুলারহাট নামক ঘাটে নেমে ঘাট থেকে রিক্সা (ভাড়া ৩০-৫০ টাকা), ভ্যান (ভাড়া ২০-৩০ টাকা) ও টেম্পুযোগে (ভাড়া ২০-৩০ টাকা) পিরোজপুর শহরে যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে ব্যক্তিমালিকানাধীন লঞ্চের পাশাপাশি বিআইডব্লিউটিএ-র রকেটও ঢাকা-পিরোজপুর রুটে চলাচল করে। লঞ্চের তুলনায় রকেটে যাতায়াত কিছুটা আরামদায়ক। সরকারী ছুটির দিন ব্যতীত সপ্তাহের ৫ দিন রকেট চলাচল করে। রকেটগুলো প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬:৩০টায় সদরঘাট থেকে ছেড়ে গিয়ে পরদিন সকাল ৮:০০টা থেকে ১০:০০টার মধ্যে পিরোজপুরের হুলারহাট ঘাটে গিয়ে পৌছায়।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  • রায়েরকাঠী জমিদার বাড়ি
  • মঠবাড়িয়ার সাপলেজা কুঠিরবাড়ি
  • পিরোজপুরের প্রাচীন মসজিদ
  • মঠবাড়িয়ার মমিন মসজিদ
  • শ্রীরামকাঠী প্রণব মঠ সেবাশ্রম
  • গোপালকৃষ্ণ টাউন ক্লাব
  • শেরে বাংলা পাবলিক লাইব্রেরী
  • মাঝের চর মঠবাড়ীয়া
  • পারেড় হাট জমিদার বাড়ী
  • বলেশ্বর ঘাট শহীদ স্মৃতিস্তভ

রাত্রী যাপন[সম্পাদনা]

আবাসিক হোটেল

ক্র.নং নাম ও ঠিকানা তারকামান যোগাযোগ
হোটেল রজনী, ক্লাব রোড়, পিরোজপুর এক তারকা ০১৭১২৫৬২২৪১
হোটেল রিল্যাক্স, হাসপাতাল রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৮০৭
হোটেল ডালাস, থানা রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৮৫৫
হোটেল বলাকা, ব্রীজ রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৭১০
হোটেল অবকাশ, থানা রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৩৩৩
হোটেল বিলাস, ক্লাব রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৫৯৪
হোটেল রয়্যাল, কলেজ রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০১৭১২৯৪৪৩৩৫
হোটেল ছায়ানীড়, বাজার রোড, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬২৩৮১
হোটেল সিনথিয়া, কাপুড়িয়া পট্টি, পিরোজপুর এক তারকা ০৪৬১-৬৩২৬২
১০ হোটেল আল মদীনা, ইন্দেরহাট বন্দর, নেছারাবাদ এক তারকা ০১৭১২৫১৯০০৯

জরুরী নম্বরসমূহ[সম্পাদনা]

  • ওসি, পিরোজপুর সদরঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৩৬;
  • ওসি, ভান্ডারিয়াঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৩৭;
  • ওসি, নেসারাবাদঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৩৮;
  • ওসি, কাউখালীঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৩৯;
  • ওসি, নাজিরপুরঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৪০;
  • ওসি, ইন্দুরকানিঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৪১;
  • ওসি, মঠবাড়ীয়াঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩৪২।