এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > ঢাকা বিভাগ > গাজীপুর জেলা > বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক বা সংক্ষেপে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক বাংলাদেশের গাজীপুর জেলায় অবস্থিত একটি সাফারি পার্ক। ২০১০ সালে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে এটির উদ্বোধন করা হয়।

পার্কের সময়সূচি: সপ্তাহে ছয়দিন সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য পার্কটি খোলা থাকে। প্রতি মঙ্গলবার পার্ক সাপ্তাহিক বন্ধ থাকে। প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা।

সাফারি পার্কের প্রবেশ পথ

কিভাবে যাবেন[সম্পাদনা]

এটি ঢাকা থেকে ৪০ কিলোমিটার উত্তরে ঢাকা - ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাঘের বাজার থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে সাফারী পার্কটির অবস্থান।

ঢাকার গুলিস্তান থেকে প্রভাতি-বনশ্রি বাস মাওনা যায়। এই বাসে করে বাঘের বাজার নামতে হবে। ভাড়া ৭০ টাকা। এছাড়াও মহাখালি থেকেও এই বাসে উঠা যাবে, ভাড়া ৬০ টাকা নিবে। অথবা সায়েদাবাদ থেকে বলাকা, গুলিস্তান থেকে গাজিপুরের যে কোন গাড়ি ও যাত্রাবাড়ি, মালিবাগ, রামপুরা থেকে সালসাবিল বা অনাবিল বা অন্য যে কোন বাসে গাজিপুর চৌরাস্তা গিয়ে, তারপর লেগুনা করেও যাওয়া যায়। চৌরাস্তা থেকে লেগুনা ভাড়া ৩০ টাকা।

এছাড়াও কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ট্রেনে গাজিপুর নেমে লেগুনা করেও যাওয়া যাবে বাঘের বাজার। বাঘের বাজার থেকে ইজি বাইক/ অটো রিক্সা/ সিএনজি করে ৩ কিলো পশ্চিমে পার্কের ফটক পর্যন্ত যেতে ভাড়া নিবে জনপ্রতি ১০ টাকা।

থাকা[সম্পাদনা]

এই পার্কে সকালে গিয়ে বিকেলে ফিরে আসা যায়। তারপরও কেউ চাইলে পার্কে থাকতে পারেন। রাত্রি যাপনের জন্য পার্কে বিশ্রামাগার আছে। থাকতে হলে আগে থেকে বুকিং দিয়ে যেতে হবে। এছাড়া ঢাকার বাইরে থেকে আসলে গাজিপুর চৌরাস্তা এসে যেকোন হোটেলে থাকতে পারেন।

খাওয়া[সম্পাদনা]

পার্কের প্রধান ফটকের একটু আগেই কয়েকটি রেস্তোরাঁ আছে সেখানে খাওয়া দাওয়া করা যাবে। পর্যটন স্পট বিধায় সব কিছুর দাম একটু বেশি। এছাড়া বাঘের বাজারে কয়েকটি রেস্তোরাঁ আছে সেখানেও খাবারের ব্যবস্থা আছে।

পার্কের ভিতরে দুটি ফুড কার্ট আছে সেখানে ফাস্ট ফুড আইটেম সহ কোমল পানীয়, চিপস ইত্যাদি পাবেন। এবং সকালে গিয়ে অর্ডার করলে দুপুরের খাবারো পাবেন। তবে ভিতরে দাম অনেক বেশি। তাই কিছু কেনার আগে দাম জিজ্ঞাসা করুন। এছাড়াও পার্কে প্রবেশ মুখের ডান দিকে দুইটি রেস্তোরাঁ আছে। বাঘ পর্যবেক্ষণ রেস্তোরা ও সিংহ পর্যবেক্ষন রেস্তোরা। সেখানেও খাওয়া দাওয়া করতে পারেন পাশাপাশি রেস্তোরাঁ বসেই বাঘ, সিংহ পর্যবেক্ষন করতে পারবেন। সবচেয়ে ভালো হয় শুকনা খাবার ও পানি বাহির থেকে কিনে ভিতরে প্রবেশ করা।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

সাফারি পার্কে আছে জলহস্তী, বাঘ, সিংহ, হাতি, সাম্বার, মায়া হরিণ, চিত্রা হরিণ, বানর, হনুমান, ভল্লুক, গয়াল, কুমির ও বিচিত্র পাখী। এই পার্ক জুড়ে রয়েছে নানা দর্শনীয় পশু-পাখি ও ভাঙ্কর্য। পার্কের প্রথমে ঢুকেই হাতের ডানে পুরো পার্কের মানচিত্র পাওয়া যাবে। আকাশ থেকে পুরো পার্কের নয়নজুড়ানো দৃশ্য দেখার জন্য আছে কয়েকটি ওয়াচ টাওয়ার। এছাড়াও আছে ঝুলন্ত ব্রিজ ও হাতির উপড়ে চড়ার সুযোগ। তবে পার্কের বেশিরভাগ দর্শনীয় জিনিষগুলো টিকেটের বিনিময়ে দেখতে হবে।

এই পার্কটি পাঁচটি অংশে বিভক্ত:

  • বঙ্গবন্ধু চত্বর
  • কোর সাফারি: সাফারি পার্কের মূল আকর্ষণ এই কোর সাফারি। যেখানে জনপ্রতি ১০০ টাকা টিকেটের বিনিময়ে বাসে করে ঘুরে বেড়াবেন জঙ্গলে। আর বাঘ, ভাল্লুক, সিং, হরিন, জিরাফ, জেব্রা সহ বিভিন্ন প্রানি দেখবেন উন্মুক্ত। আপনার গাড়ির কাছে এসে তারা খেলা করছে।
  • সাফারি কিংডম: এর আওতায় রয়েছে বাকি অন্যন্য আকর্ষনিয় সব কিছু। যেমন-
    • প্রকৃতি বিক্ষন কেন্দ্র
    • প্যারট এভিয়ারি
    • ক্রাউন ফিজেন্ট এভিয়ারি
    • ম্যাকাউ ল্যান্ড
    • ছোট পাখিশালা
    • ফেন্সি ডাক গার্ডেন
    • কুমির পার্ক
    • প্রজাপ্রতি বাগান
    • ইমু/অস্ট্রিচ গার্ডেন
    • কচ্ছপ ও কাছিম প্রজনন কেন্দ্র
    • লিজার্ড পার্ক
    • ভালচার হাউজ
    • হাতি শালা
    • মেরিন একুরিয়াম
    • অর্কিড হাউজ
    • পেলিকন আইল্যন্ড
    • ঝুলন্ত ব্রিজ
    • এগ ওয়ার্ল্ড
    • ধনেশ এভিয়ারি
    • প্রাইমেট হাউজ
    • লেক জোন
    • বোটিং লেক
    • লামচিতার ঘর
    • ক্যঙ্গারু এভিয়ারি
    • প্রাকৃতিক ইতিহাসের জাদুঘর
    • শিশু পার্ক
  • জীব বৈচিত্র্য পার্ক
  • বিস্তৃত এশীয় পার্ক

হ্রদে বোটিং ছাড়া বাকি সব গুলো দেখতে ১০ টাকা করে টিকেট লাগে। সবগুলি দেখার প্যাকেজ ১৬০ টাকা দিয়ে কেনা যাবে। যেখানে আলাদা আলাদা সব ঘুরে দেখতে ২৬০ টাকা লাগবে। এছাড়াও কিছু খন্ড খন্ড প্যাকেজ আছে ১০০ টাকা ও ৫০ টাকার।

শিক্ষা সফর[সম্পাদনা]

শিক্ষা সফর বা পিকনিকের জন্য জন্য উপযুক্ত জায়গা। পার্কের বাহিরে পিকনিক করার জন্য রয়েছে বিশাল খালি জায়গা যেখানে গাড়ি পার্কিং করা যাবে চার্জের বিনিময়ে। এছাড়াও কিছু স্পট আছে যেটা পিকনিকের জন্য ভাড়া দেওয়া হয়। শিক্ষা সফর বা পিকনিকের জন্য কর্তৃপক্ষের সাথে আগে যোগাযোগ করতে হবে।

প্রয়োজনীয় যোগাযোগের নম্বর[সম্পাদনা]

  • বন সংরক্ষক: ০২-৮১৮১১৪২
  • ফরেস্ট রেঞ্জার অফিসার: ০১৮৩৭-১৯৯১৪৪
  • ওয়া্ইল্ড লা্ইফ রেঞ্জার: ০১৭১৬২৮১১২৯
  • সাফারী কিংডম: ০১৭০-৮৯০৯৩০২
  • সিংহ পর্যবেক্ষণ রেস্তোরা: ০১৯১৯-৬৯৮৯৩৬
  • বাঘ পর্যবেক্ষণ রেস্তোরা: ০১৭১১১-৮০০২৯
  • খাদ্য কোর্ট: ০১৭১১৫৮৫৩৪১