এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > ঢাকা বিভাগ > ঢাকা জেলা > কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দের ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিসৌধ।

জানুন[সম্পাদনা]

প্রতি বছর ২১শে ফেব্রুয়ারি তারিখে এখানে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হয়ে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করে। এটি ঢাকার কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত অন্যতম পর্যটন বিন্দু। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দের ২৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ শুরু করে রাত্রির মধ্যে তা’ সম্পন্ন করে। শহীদ মিনারের খবর কাগজে পাঠানো হয় ঐ দিনই। শহীদ বীরের স্মৃতিতে - এই শিরোনামে দৈনিক আজাদ পত্রিকায় ছাপা হয় শহীদ মিনারের খবর।

অবস্থান[সম্পাদনা]

এটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার কেন্দ্রস্থলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজেরবর্হিপ্রাঙ্গনে অবস্থিত। মিনারটি তৈরি হয় মেডিকেলের ছাত্র হোস্টেলের (ব্যারাক) বার নম্বর শেডের পূর্ব প্রান্তে। কোণাকুণিভাবে হোস্টেলের মধ্যবর্তী রাস্তার গা-ঘেঁষে। উদ্দেশ্য বাইরের রাস্তা থেকে যেন সহজেই চোখে পড়ে এবং যে কোনো শেড থেক বেরিয়ে এসে ভেতরের লম্বা টানা রাস্তাতে দাঁড়ালেই চোখে পড়ে। বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেবার পরে ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

কিভাবে যাবেন[সম্পাদনা]

ঢাকার যেকোন জায়গা থেকে শাহবাগ এসে রিক্সা দিয়ে সহজেই শহীদ মিনার এলাকায় আসতে পারবেন।

আকাশ পথ[সম্পাদনা]

পৃথিবীর যেকোন স্থান থেকে আকাশ পথে ঢাকাতে আসার পর বাস, সিএনজি, ট্যাক্সি ইত্যাদির মাধ্যমে এখানে আসা যাবে।

স্থলপথ[সম্পাদনা]

বাস বা ট্রেনে ঢাকাতে আসার পর বাস, সিএনজি, ট্যাক্সি ইত্যাদিতে মাধ্যমে এখানে আসা যাবে।

নৌপথ[সম্পাদনা]

নৌপথে ঢাকাতে আসার পর বাস, সিএনজি, ট্যাক্সি ইত্যাদিতে মাধ্যমে এখানে আসা যাবে।

কি দেখবেন[সম্পাদনা]

প্রথম শহীদ মিনারটি ছিল ১০ ফুট উচ্চ ও ৬ ফুট চওড়া। মিনার তৈরির তদারকিতে ছিলেন জিএস শরফুদ্দিন (ইঞ্জিনিয়ার শরফুদ্দিন নামে পরিচিত), নকশা করেছিলেন বদরুল আলম; সাথে ছিলেন সাঈদ হায়দার। পরবর্তীতে এর নকশা পরিবর্তন করা হয়। মূলত বাংলাদেশের জাতীয় আন্দোলনের স্মৃতিবিজড়িত সৌধ এটি। প্রতি বছর ২১শে ফেব্রিয়ারি এখানে দেশী-বিদেশী প্রচুর লোক সমাগম হয়। লক্ষ লক্ষ মানুষ এখানে আসে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে।

শহীদ মিনার ছাড়াও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল, দোয়েল চত্তর, সরোয়ার্দী উদ্যান, চারুকলা ইনস্টিটিউট, জাতীয় জাদুঘর অথবা টিএসসি দেখতে পারেন।

খাওয়া[সম্পাদনা]

স্মৃতিসৌধের পাশেই অনেক ভালো মানের রেস্তোরা আছে। এখানে সব ধরনের খাবারই পাওয়া যায়।

থাকা[সম্পাদনা]

ঢাকায় প্রচুর উন্নতমানের আবাসিক হোটেল, মোটেল ও বাংলো আছে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]