এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন
24.4188.93Map mag.png

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > রাজশাহী বিভাগ > নাটোর জেলা

নাটোর জেলা

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

নাটোর জেলা বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত একটি জেলা যা রাজশাহী বিভাগ এর অন্তর্গত।

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নাটোর জেলা বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রাজশাহী বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। অতি প্রাচীনকাল থেকেই এ জেলা রাজা-জমিদারদের জৌলুস, আভিজাত্য, শিল্প, সংস্কৃতি, সভ্যতা, আচার-অনুষ্টান প্রভৃতিতে বাংলার অনন্য এক অংশ হয়ে আছে। অষ্টাদশ শতকের শুরুতে নাটোর রাজবংশের উৎপত্তি হয়। ১৭০৬ সালে পরগণা বানগাছির জমিদার গণেশ রায় ও ভবানী চরণ চৌধুরী রাজস্ব প্রদানে ব্যর্থ হয়ে চাকরীচ্যুত হন। দেওয়ান রঘুনন্দন জমিদারিটি তার ভাই রামজীবনের নামে বন্দোবস্ত নেন । এভাবে নাটোর রাজবংশের পত্তন হয়। রাজা রামজীবন নাটোর রাজবংশের প্রথম রাজা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন ১৭০৬ সালে মতান্তরে ১৭১০ সালে । ১৭৩৪ সালে তিনি মারা যান । ১৭৩০ সালে রাণী ভবানীর সাথে রাজা রাম জীবনের দত্তক পুত্র রামকান্তের বিয়ে হয় । রাজা রাম জীবনের মৃত্যুর পরে রামকান্ত নাটোরের রাজা হন। ১৭৪৮ সালে রাজা রামকান্তের মৃত্যুর পরে নবাব আলীবর্দী খাঁ রাণী ভবানীর ওপর জমিদারি পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করেন । রাণী ভবানীর রাজত্বকালে তার জমিদারি বর্তমান রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, কুষ্টিয়া, যশোর, রংপুর, পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ , বীরভূম, মালদহ জেলা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

নাটোরে নীল বিদ্রোহ ১৮৫৯-১৮৬০ তে সংঘটিত হয়। ১৮৯৭ সালের জুনে নাটোরে বঙ্গীয় প্রাদেশিক কংগ্রেসের অধিবেশন হয় । সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর সভাপতি, মহারাজা জগদিন্দ্রনাথ অভ্যর্থনা নমিতির সভাপতি ও প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও মহারাজা জগদিন্দ্রনাথের চেষ্টায় সেবারই প্রথম রাজনৈতিক সভায় বাংলা ভাষার প্রচলন করা হয়। ১৯০১ সালে মহারাজা জগদিন্দ্রনাথ কলকাতা কংগ্রেসের অভ্যর্থনা সমিতির সভাপতি হন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৮৪৫ সালে রাজশাহী জেলার অধীনে নাটোর মহকুমার সৃষ্টি। আর অন্যান্য মহকুমার মতো জেলায় উন্নীত হয় ১৯৮৪ সালে।

১৯৭১ সালের ৫ মে গোপালপুরের চিনিকলের এম.ডি. মো. আজিম সহ প্রায় ২০০ মানুষকে নৃশংসভাবে পাকবাহিনী হত্যা করে। এই বধ্যভূমিতে নির্মাণ করা হয়েছে শহীদ মিনার এবং রেলস্টেশনের নামকরণ হয়েছে আজিমনগর।

কিভাবে যাবেন[সম্পাদনা]

ঢাকা থেকে নাটোর প্রায় ১৯৬.২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সড়কপথ ও রেলপথ দুভাবেই নাটোরে পৌছানো যাবে।

বাসে করে[সম্পাদনা]

ঢাকার গাবতলী ও মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে নাটোর যাবার জন্য এসি-ননএসি বাস আছে। এর মধ্যে দেশ ট্রাভেলস, ন্যাশনাল ট্রাভেলস, হানিফ ইন্টারপ্রাইজ, তুহিন এলিট, গ্রামীণ ট্রাভেলস উল্লেখযোগ্য।

  • দেশ ট্রাভেলস, ☎০১৭৪৬৪৭৪৭৮০ - ৪০০ টাকা
  • ন্যাশনাল ট্রাভেলস, ☎০১৭২৭৫৪৫৪৬০ - ৪০০ টাকা
  • হানিফ ইন্টারপ্রাইজ, ☎০১৭২০২১৪৭৮৫ - ৪০০ টাকা
  • তুহিন এলিট - ৪০০ টাকা
  • গ্রামীণ ট্রাভেলস - ৪০০ টাকা
  • শ্যামলী পরিবহণ - ৪০০ টাকা

ট্রেন[সম্পাদনা]

ঢাকা ও নাটোরের মধ্যে প্রতিদিন প্রচুর বিলাসবহুল ইন্টারসিটি সার্ভিস রয়েছে। প্রধানরা হল পদ্মা এক্সপ্রেস, সিল্ক সিটি এক্সপ্রেস এবং ধূমকেতু এক্সপ্রেস।

  • সিল্ক সিটি এক্সপ্রেস - রাজশাহী থেকে দুপুর ২ টা এবং ঢাকা থেকে নাটোর পর্যন্ত ৮:১৫ এ।
  • পদ্মা এক্সপ্রেস - রাজশাহী থেকে সকাল ১০ টা ৪৫ মিনিটে এবং নাটোর থেকে ঢাকা পর্যন্ত সকাল ১১ টা।
  • ধূমকেতু এক্সপ্রেস - ঢাকা থেকে সকাল সাড়ে ৬ টায় চালু ট্রেন রাজশাহীতে সকাল ১২ টায় পৌঁছায় এবং সকাল ১১:২০ মিনিটে রাজশাহী হতে ছেড়ে যাওয়া ট্রেন বিকেল ৪ টা ২০ মিনিটে ট্রেন ঢাকা পৌঁছায়।

বর্তমানে সিল্ক সিটি এক্সপ্রেসটি রবিবারে তাদের সেবা প্রদান করছে না, পদ্মা এক্সপ্রেসে মঙ্গলবারে তাদের কোন সেবা প্রদান করছে না, এবং ধূমকেতু এক্সপ্রেস সোমবারে চলাচল বন্ধ রাখছে।

দীর্ঘ দূরত্বের ট্রেনের জন্য প্রধান স্টেশন রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন, যা রাজশাহী শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। কখনো কখনো বিশেষ কারনে ট্রেনের যাত্রা সময় পরিবর্তন হতে পারে।

আকাশ পথে[সম্পাদনা]

নাটোর হতে প্রায় ৫০ কিঃমিঃ পশ্চিমে রাজশাহীতে 'শাহ মখদুম বিমানবন্দর' অবস্থিত। এখানে রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে উড়োজাহাজ চলাচল করে।

কি দেখবেন[সম্পাদনা]

নাটোর জেলায় বিভিন্ন ঐতিয্যবাহী স্থান রয়েছে। এই জেলাটি চলনবিলের অন্তর্গত একটি জেলা। চলনবিল জাদুঘর এখানেই অবস্থিত। এই জেলার মাঝে দিয়েই পদ্মা, আত্রাই প্রভৃতি নদী বয়ে গেছে। নাটোর জেলায় রাজা দয়ারাম রায় প্রতিষ্ঠিত রাজবাড়ি দিঘাপতিয়া রাজবাড়ি বিদ্যমান যা বর্তমানে উত্তরা গণভবণ নামে পরিচিত। নাটোর রাজবাড়িও এখানেই অবস্থিত।

  • নাটোর রাজবাড়ী
  • চলন বিল
  • দয়ারামপুর জমিদার বাড়ি
  • চলনবিল জাদুঘর
  • হালতি বিল
  • লালপুরের পদ্মার চর
  • শহীদ সাগর|শহীদ সাগর (গোপালপুর)
  • বুধপাড়া কালীমন্দির,
  • ধরাইল জমিদার বাড়ি
  • লুর্দের রানী মা মারিয়ার ধর্মপল্লী, নাটোর
  • উত্তরা গণভবন (দিঘাপতিয়া রাজবাড়ী), নাটোর সদর, নাটোর (নাটোর শহরের যে কোন স্থান থেকে সরাসরি রিক্সা বা অটোরিক্সা যোগে যাওয়া যায়।শহরের মাদ্রাসা মোড় থেকে উত্তরা গণভবনের রিকশা ভাড়া ৩০ টাকা।যাতায়াতের জন্য রিক্সা বা অটোরিক্সা রিজার্ভ না নেয়াই ভাল। কেননা নাটোর শহরের সকল স্থানেই স্থানীয় যানবাহন পর্যাপ্ত চলাচল করে।), +৮৮০৭৭১-৬৬৬৫২Simple icon time.svg ০৯ঃ০০ - ১৭ঃ০০চারিদিকে মনোরম লেক, সুউচ্চ প্রাচীর পরিবেষ্টিত ছোট বড় ১২টি কারুকার্যখচিত ও দৃষ্টিনন্দন ভবন নিয়ে উত্তরা গণভবন ৪১.৫১ একর জমির উপর অবস্থিত। অভ্যন্তরে রয়েছে ইতালী থেকে সংগৃহীত মনোরম ভাস্কর্যে সজ্জিত বাগান, যেখানে রয়েছে বিরল প্রজাতির নানা উদ্ভিদ। Linecons banknote.svg ২০ ৳ উইকিপিডিয়ায় উত্তরা গণভবন

খাওয়া দাওয়া[সম্পাদনা]

নাটোরের কাঁচাগোল্লা

কাঁচাগোল্লা নাটোর জেলার একটি ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি। দেশব্যাপী কাঁচাগোল্লার স্বাদের জন্য বিখ্যাত। এটি নাটোরের যে কোন মিষ্টির দোকানে পাওয়া যায়। সবচেয়ে বিখ্যাত কাঁচাগোল্লা পাওয়া যায় কালিবাড়ী মন্দির গেট, মৌচাক মিষ্টান্ন ভান্ডারে।

রাত্রিযাপন করুন[সম্পাদনা]

নাটোর জেলায় থাকার জন্য হোটেল ও গেস্টহাউজের মধ্যে রয়েছে:

  1. হোটেল ভিআইপি, বড় হরিষপুর, নাটোর (এই হোটেলটি কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের ১ কিলোমিটার পশ্চিমে এবং মাদ্রাসা মোড়ের পূর্বে অবস্থিত।), +৮৮০৭৭১-৬৬০৯৭, +৮৮০১৭১৮৬৭৩৭৩৫
  2. হোটেল মিল্লাত, মাদ্রাসা মোড়, নাটোর সদর, নাটোর (এই হোটেলটি কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের ১ কিলোমিটার পশ্চিমে এবং মাদ্রাসা মোড়ের পূর্বে অবস্থিত।)।
  3. হোটেল বনফুল, আহমেদপুর,বড়াইগ্রাম,নাটোর।, +৮৮০১৭২৬৩৭৬৬৮৮
  4. জেলা পরিষদ ডাক বাংলো, বাগাতিপাড়া, বাগাতিপাড়া উপজেলা (বাগাতিপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বাস ভবন ও উপজেলা পরিষদ মসজিদ সংলগ্ন)।
  5. হোটেল প্রিন্স, রেলওয়ে স্টেশন বাজার, নাটোর সদর, নাটোর (নাটোর রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন), +৮৮০৭৭১-৬১৩৫৬, +৮৮০১৭৪৬০২৯৪২৯
  6. হোটেল রাজ, মাদ্রাসা মোড়, নাটোর সদর, নাটোর, +৮৮০৭৭১-৬৬৬৬০, +৮৮০১৭২৭৩৭১৫০০
  7. হোটেল রুখসানা, কানাইখালী, পুরান বাসস্ট্যান্ড, নাটোর সদর, নাটোর, +৮৮০৭৭১-৬২৪৩১, +৮৮০১৭৩৯৯৮৭০১৭
  8. নাটোর বোর্ডিং, নিচাবাজার, হাসপাতাল সড়ক, নাটোর সদর, নাটোর, +৮৮০৭৭১-৬২০০১
  9. নাটোর সুগার মিলস গেস্টহাউজ, নাটোর সুগার মিলস এলাকা, নাটোর সদর, নাটোর
  10. বিসমিল্লাহ হোটেল, গুরুদাসপুর উপজেলা কমপ্লেক্স, গুরুদাসপুর, নাটোর।
  11. চাঁচকৈর হোটেল ও রেস্টুরেন্ট, চাঁচকৈর বাজার,গুরুদাসপুর উপজেলা, নাটোর (গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈর বাজারে চাঁচকৈর হোটেল ও রেস্টুরেন্ট অবস্থিত)।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]