এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > বরিশাল বিভাগ > পটুয়াখালী জেলা > মির্জাগঞ্জ উপজেলা

মির্জাগঞ্জ উপজেলা

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


মির্জাগঞ্জ উপজেলা বাংলাদেশের পটুয়াখালী জেলার অন্তর্গত একটি প্রশাসনিক এলাকা। ১৭৫.৪৫ বর্গ কিমি আয়তনের এই উপজেলাটি ২২°১৩´ উত্তর অক্ষাংশ থেকে ২২°২৯´ উত্তর অক্ষাংশের এবং ৯০°০৮´ পূর্ব দ্রাঘিমা থেকে ৯০°১৯´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত, যার উত্তরে বাকেরগঞ্জ উপজেলা; দক্ষিণে বরগুনা সদর উপজেলা; পূর্বে রাজগঞ্জ নদী ও পটুয়াখালী সদরদুমকি উপজেলা এবং পশ্চিমে বেতাগী উপজেলা

কিভাবে যাবেন?[সম্পাদনা]

রাজধানী ঢাকা থেকে উপজেলা সদরের দূরত্ব ২১৮ কিলোমিটার এবং জেলা সদর হতে ১৭ কিলোমিটার। এই জেলাটি একটি উপকূলী ও নদীবহুল অঞ্চল হওয়ায় এখানকার যেকোনো স্থানে আসার জন্য নৌপথ সবচেয়ে সুবিধাজনক পরিবহণ ব্যবস্থা। তবে, সড়ক পথেও এখানে আসা সম্ভব; সেক্ষেত্রে ফেরী পারাপার হতে হবে। পটুয়াখালীতে রেল যোগাযোগ বা বিমান বন্দর নেই বলে এই দুটি মাধ্যমে এখানকার কোনো স্থানে আসা যায় না।

সড়কপথে[সম্পাদনা]

ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশ্যে যেসব গাড়ি ছেড়ে যায় সেগুলোতে বরিশাল-বাকেরগঞ্জ-মির্জাগঞ্জ-চান্দখালী-বরগুনা মহাসড়কে আসা যায়। এই রুটে গাড়িগুলো হল এসি চেয়ার কোচ, হিনো চেয়ার কোচ ও নরমাল চেয়ার কোচ। এসি চেয়ার কোস ও হিনো চেয়ার কোচগুলো গুলো ফেরী পারাপার এবং নরমাল চেয়ার কোসগুলো লঞ্চ পারাপার। এছাড়া লোকাল পথেও বরিশাল হয়ে যাওয়া যায়।

নৌপথে[সম্পাদনা]

ঢাকা সদরঘাট নদী বন্দর লঞ্চ টার্মিনাল থেকে পটুয়াখালীর লঞ্চ আছে, সেগুলোতে করে আসা যায়। এছাড়াও বরগুনা / ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে যেসব লঞ্চ ছেড়ে যায় সেগুলোতে আসা যায়; বা বরিশালগামী লঞ্চে এসে সেখান থেকে লোকাল নৌযানে আসা যায়।

দর্শনীয় স্থানসমূহ[সম্পাদনা]

  1. মির্জাগঞ্জের ইয়ার উদ্দিন খলিফার মাজার,
  2. মজিদবাড়ীয়ায় একগম্বুজ শাহী মসজিদ,
  3. রাধাগোবিন্দ মন্দির (কাঁঠালতলী)।

খাওয়া - দাওয়া[সম্পাদনা]

থাকা ও রাত্রী যাপনের স্থান[সম্পাদনা]

মির্জাগঞ্জে থাকার জন্য স্থানীয় পর্যায়ের কিছু সাধারণ মানের হোটেল রয়েছে। এছাড়াও সরকারি ব্যবস্থাপনায় থাকার জন্যে রয়েছে উন্নতমানের -

  • জেলা পরিষদ ডাকবাংলো - মির্জাগঞ্জ।

জরুরী নম্বরসমূহ[সম্পাদনা]

  • ওসি, মির্জাগঞ্জঃ মোবাইলঃ ০১৭১৩-৩৭৪ ৩২৪।