এই নিবন্ধের জন্য GPX ফাইল ডাউনলোড করুন

এশিয়া > দক্ষিণ এশিয়া > বাংলাদেশ > রংপুর বিভাগ > রংপুর জেলা > রংপুর

রংপুর

উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

রংপুর শহর হলো বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত একটি প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী শহর, যা রংপুর বিভাগের অন্তর্গত রংপুর জেলায় পড়েছে। এটি মূলত রংপুর সিটি কর্পোরেশন, যা ৩৩টি ওয়ার্ডে বিভক্ত এবং রংপুর সদর উপজেলা হতে ১০টি, কাউনিয়া উপজেলা হতে সারাই ও পীরগাছা উপজেলা হতে কল্যাণী - এই ১২টি ইউনিয়নের ১১২টি মৌজা নিয়ে গঠিত।

কিভাবে যাবেন?[সম্পাদনা]

স্থল পথে[সম্পাদনা]

সড়ক পথে ঢাকা হতে রংপুরের দূরত্ব ৩০৪ কিলোমিটার এবং রেলপথে ঢাকা হতে রংপুর রেল স্টেশনের দূরত্ব ৫২৯ কিলোমিটার।

সড়কপথ[সম্পাদনা]

ঢাকার গাবতলী, মহাখালী, সায়েদাবাদ, শ্যামলী, কল্যানপুর, কলাবাগান, ফকিরাপুল - প্রভৃতি বাস স্টেশন থেকে রংপুর আসার সরাসরি দুরপাল্লার এসি ও নন-এসি বাস সার্ভিস আছে; এগুলোতে সময় লাগে ৫.৩০ হতে ৮ ঘন্টা। ঢাকা থেকে রংপুরের উদ্দেশ্যে এনা, হানিফ, শ্যামলী, নাবিল, এসআর, আগমনী, ডিপজল প্রভৃতি পরিবহণ কোম্পানীর বাস আছে প্রতি ১০ মিনিট পর পর।

  • এনা ট্রান্সপোর্ট (প্রাঃ) লিঃ মোবাইল ০১৭৬০-৭৩৭ ৬৫০ (মহাখালী), ০১৮৭২-৬০৪ ৪৯৮ (এয়ারপোর্ট), ০১৭৬০-৭৩৭ ৬৫১ (উত্তরা), ০১৭৬০-৭৩৭ ৬৫৩ (টঙ্গী), ০১৮৭২-৬০৪ ৪৭৫ (ফকিরাপুল), ০১৮৬৯-৮০২ ৭৩১ (মিরপুর);
  • হানিফ এন্টারপ্রাইজঃ মোবাইল ০১৭১৩-৪০২৬৬১ (কল্যাণপুর), ০১৭১৩-৪০২৬৭১, ০১৭১৩-৪০২৬৩১ (আরামবাগ);
  • শ্যামলী পরিবহনঃ ☎ ০২-৯০০৩৩১, ৮০৩৪২৭৫ (কল্যাণপুর)।
  • ঢাকা-রংপুর রুটে সরাসরি চলাচলকারী পরিবহণে আসার ক্ষেত্রে ভাড়া হলোঃ
    • এসি বাসে - ৮০০/- (রেগুলার) ও ১২০০/- (এক্সিকিউটিভ) এবং
    • নন-এসি বাসে - ৩০০/- হতে ৫৫০/-।

রেলপথ[সম্পাদনা]

ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে রংপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ট্রেনে সরাসরি এখানে আসা যায়। কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে প্রতিদিন একাধিক ট্রেন রংপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ঢাকা – রংপুর রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলো হলোঃ

  • রংপুর এক্সপ্রেস - রংপুর হতে সকাল ০৮ টা ১০ মিনিটে ছাড়ে ও ঢাকা থেকে সকাল ০৮ টায় ছাড়ে;
  • লালমনি এক্সপ্রেস - ঢাকা থেকে রাত ১০ টা ১০ মিনিটে ছাড়ে;
  • নীলসাগর এক্সপ্রেস - ঢাকা থেকে সকাল ০৮ টায় ছাড়ে;
  • একতা এক্সপ্রেস - ঢাকা থেকে সকাল ০৯ টা ৫০ মিনিটে ছাড়ে;
  • দ্রুতযান এক্সপ্রেস - ঢাকা থেকে বিকাল ০৫ টা ৪০ মিনিটে ছাড়ে

ঢাকা-রংপুর রুটে চলাচলকারী রেলে ঢাকা হতে রংপুর আসার ক্ষেত্রে ভাড়া হলো -

  • শোভন - ৪২০ টাকা;
  • শোভন চেয়ার - ৫০৫ টাকা;
  • ১ম শ্রেণির চেয়ার - ৬৭৫ টাকা;
  • ১ম শ্রেণির বাথ - ১,০১০ টাকা;
  • স্নিগ্ধা - ৮৪০ টাকা;
  • এসি সীট - ১,০১০ টাকা এবং
  • এসি বাথ - ১,৫১০ টাকা।

ট্রেন সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেনঃ

  • কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন, ☎ ০২-৯৩৫৮৬৩৪,৮৩১৫৮৫৭, ৯৩৩১৮২২, মোবাইল নম্বর: ০১৭১১৬৯১৬১২;
  • বিমানবন্দর রেলওয়ে ষ্টেশন, ☎ ০২-৮৯২৪২৩৯;
  • ওয়েবসাইট: www.railway.gov.bd।

আকাশ পথে[সম্পাদনা]

রংপুরে সরাসরি বিমানে আসা যায়; ঢাকা থেকে রংপুরের সাথে সরাসরি বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে। বাংলাদেশ বিমান, জেট এয়ার, নোভো এয়ার, রিজেন্ট এয়ার, ইউনাইটেড এয়ার - প্রভৃতি বিমান সংস্থার বিমান পরিষেবা রয়েছে ঢাকা থেকে রংপুর আসার জন্য।

বাংলাদেশ বিমানের একটি করে ফ্লাইট সপ্তাহে ৪ দিন ঢাকা-রংপুর ও রংপুর-ঢাকা রুটে চলাচল করে; ভাড়া লাগবে একপথে ৩,০০০/- এবং রিটার্ণ টিকিট ৬,০০০/-। সময়সূচী হলোঃ

  • ঢাকা হতে রংপুর - শনি, রবি, মঙ্গল, বৃহস্পতি - দুপুর ০২ টা ২০ মিনিট।
  • রংপুর হতে ঢাকা - শনি, রবি, মঙ্গল, বৃহস্পতি - দুপুর ০৩ টা ৩৫ মিনিট।

এই সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেনঃ

    • ম্যানেজার, সৈয়দপুর বিমান বন্দর, মোবাইল - ০১৫৫৬-৩৮৩ ৩৪৯।

জল পথে[সম্পাদনা]

অপ্রচলিত মাধ্যম হিসাবে নৌপথ ব্যবহৃত হয়ে থাকে; তবে কেবলমাত্র স্থানীয় পর্যায় ছাড়া অন্য কোনো এলাকার সাথে, কিংবা ঢাকা থেকে বা অন্যান্য বড় শহর হতে সরাসরি কোনো নৌযান চলাচল করে না। তবে, শহরের মধ্যে কোনো নৌপথ না-থাকায় কোনো নৌযান চলাচল করে না।

দর্শনীয় স্থান ও স্থাপনা[সম্পাদনা]

  • কারমাইকেল কলেজ;
  • পায়রা চত্তর;
  • রংপুর চিড়িয়াখানা।

খাওয়া দাওয়া[সম্পাদনা]

‘সিদল ভর্তা’ রংপুরের জনপ্রিয় খাবার, যা কয়েক ধরনের শুঁটকির সঙ্গে নানা ধরনের মসলা মিশিয়ে বেটে তৈরি করা হয়। এছাড়াও রয়েছে বিখ্যাত “হাড়িভাঙ্গা” আম, তামাক ও আখ। এখানে সাধারণভাবে দৈনন্দিন খাওয়া-দাওয়ার জন্য স্থানীয় হোটেল ও রেস্টুরেন্টগুলোতে সুস্বাদু খাবার পাওয়া যায়। এখানে কিছু উন্নতমানের হোটেল রয়েছেঃ

  • মালদহ হোটেল;
  • নর্থ ভিউ রেস্টুরেন্ট, শহীদ মোবারক সরণী, রংপুর;
  • সিসিলি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, রাজা রামমোহন রায় শপিং কমপ্লেক্স, রংপুর;
  • পারভেজ হোটেল, মেডিকেল মোড়, রংপুর;
  • কস্তূরী হোটেল, মেডিকেল মোড়, রংপুর;
  • স্টার হোটেল, মেডিকেল মোড়, রংপুর;
  • বৈশাখী, জাহাজ কোম্পানির মোড় এবং মেডিকেল মোড়, রংপুর।

থাকা ও রাত্রী যাপনের স্থান[সম্পাদনা]

রংপুরে থাকার জন্য স্থানীয় পর্যায়ের কিছু সাধারণ মানের হোটেল রয়েছে। এছাড়াও থাকার জন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে উন্নতমানের কিছু হোটেলও রয়েছে -

  • পর্যটন মোটেল, আরকে রোড, রংপুর, ☎ ০৫২১-৬২১১১;
  • জেলা পরিষদ ডাক বাংলো, পৌরবাজার, রংপুর;
  • হোটেল নর্থ ভিউ, সেন্ট্রাল রোড, রংপুর, ☎ ০৫২১-৫৫৪০৫, ৫৫৪০৬;
  • দি পার্ক হোটেল ☎ ০৫২১-৬৫৯২০;
  • হোটেল গোল্ডেন টাওয়ার, জাহাজ কোম্পনী মোড়, রংপুর, ☎ ০৫২১-৬৫৯২০;
  • হোটেল তিলোত্তমা, ☎ ০৫২১-৬৩৪৮২, মোবাইল - ০১৭১৮-৯৩৮ ৪২৪;
  • হোটেল কাশপিয়া, ☎ ০৫২১-৬১১১১, মোবাইল - ০১৯৭৭-২২৭৭৪২।

জরুরী নম্বরসমূহ[সম্পাদনা]

চিকিৎসা সম্পর্কিত যোগাযোগের জন্য
  • সিভিল সার্জন, রংপুরঃ ০১৭৬৫-৯৯২ ২৬২;
  • রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালঃ ☎ ০৫২১-৬৩৬৩০, ৬১৬০০, ৬৩৬০৩;
জননিরাপত্তা সম্পর্কিত যোগাযোগের জন্য
  • জেলা প্রশাসক, রংপুরঃ ☎ ০৫২১-৬২১২১, মোবাইল - ০১৭১৩-২০১ ৮১৮;
  • পুলিশ সুপার, রংপুরঃ ০১৭১৩-৩৭৩ ৮৬৮;
  • ওসি কোতয়ালী, রংপুরঃ ০১৭১৩-৩৭৩ ৮৭৪।