উইকিভ্রমণ থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

রাজারহাট উপজেলা বাংলাদেশের একটি প্রশাসনিক এলাকা যা রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রাম জেলার অন্তর্ভূক্ত। রাজারহাট উপজেলা ২৫°৩৮´ উত্তর অক্ষাংশ হতে ২৫°৫৩´ উত্তর অক্ষাংশের এবং ৮৯°২৭´ পূর্ব দ্রাঘিমা হতে ৮৯°৩৮´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। ১৬৬.২৩ বর্গ কিমি আয়তনের এই উপজেলাটির উত্তরে ফুলবাড়ীলালমনিরহাট সদর উপজেলা; দক্ষিণে উলিপুরপীরগাছা উপজেলা; পূর্বে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা এবং পশ্চিমে লালমনিরহাট সদরকাউনিয়া উপজেলা অবস্থিত।

কিভাবে যাবেন?[সম্পাদনা]

দেশের যেকোন স্থান হতে রাজারহাট উপজেলায় সরাসরি আসতে হলে রেল, সড়ক ও নৌ পথে আসতে হয়; আকাশ পথে এখানে সরাসরি আসার কোনো ব্যবস্থা এখনও গড়ে ওঠেনি। তবে, নৌ-পথ সীমিত এলাকা জুড়ে বিস্তৃত বিধায় দেশের সকল স্থান থেকে আসার ক্ষেত্রে এটি ব্যবহার করা সম্ভব নয়। মূলত: কুড়িগ্রাম জেলায় কোনো বিমানবন্দর না-থাকায় এবং নাব্যতা ও বড় নদ-নদী না-থাকায় এ অঞ্চলের সাথে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের আকাশ পথে বা নৌ-পথে কোনো যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি।

স্থল পথে[সম্পাদনা]

কুড়িগ্রাম জেলা শহর হতে সড়ক পথে রাজারহাট উপজেলার দূরত্ব ২৫ কি:মি: এবং সড়ক পথে ঢাকা হতে রাজারহাট উপজেলার দূরত্ব ৩৮৫ কিলোমিটার।

সড়কপথ[সম্পাদনা]

ঢাকা থেকে রাজারহাট উপজেলায় আসতে হলে মহাসড়ক পথে টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, বগুড়া, গাইবান্ধা, রংপুর এবং দিনাজপুর জেলা হয়ে আসতে হয়। ঢাকা থেকে এখানে সরাসরি বাসে আসা যায়; আবার, বিভিন্ন বিলাসবহুল পরিবহনের গাড়ীও ঢাকা-কুড়িগ্রাম রুটে চলাচল করে। কুড়িগ্রাম সদরের সাথে এই উপজেলার পাকা সড়ক পথে যোগাযোগ রয়েছে। তাছাড়াও উপজেলা সদর হতে ইউনিয়নগুলোতে যাওয়ার জন্য পাকা রাস্তা রয়েছে।

ঢাকার গাবতলী, মহাখালী, সায়েদাবাদ, শ্যামলী, কল্যানপুর, কলাবাগান, ফকিরাপুল, আসাদগেট - প্রভৃতি বাস স্টেশন থেকে রাজারহাট ও কুড়িগ্রাম আসার সরাসরি দুরপাল্লার এসি ও নন-এসি বাস সার্ভিস আছে; এগুলোতে সময় লাগে ৬.৩০ হতে ৮ ঘণ্টা। ঢাকা থেকে রাজারহাট ও কুড়িগ্রামের উদ্দেশ্যে উদ্দেশ্যে হানিফ, হক, নাবিল, জবা, এসবি প্রভৃতি পরিবহন কোম্পানীর বাস আছে প্রতিদিন।

  • হক পরিবহন, ঢাকা: ☎ ০২-৯১১৮৭১৩, মোবাইল: +৮৮০১৭২২-০৫২ ৮০৯ (আসাদগেট), কুড়িগ্রাম: ☎ ০৫৮১-৬১৮৭৩, মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০২৭ ৫১৬;
  • জবা পরিবহন, ঢাকা: ☎ ০২-৯১১২৩৪২, মোবাইল: +৮৮০১৭১২-৭২৫ ৯৬৫ (আসাদগেট), কুড়িগ্রাম: ☎ ০৫৮১-৬১৭৭২, মোবাইল: +৮৮০১৭১১-১০১ ৩৪২;
  • এসবি পরিবহন, ঢাকা: মোবাইল: ০১১৯৭-০২৫ ৬১৫ (আসাদগেট), কুড়িগ্রাম: ☎ ০৫৮১-৬১ ৮৮৭, ৬১ ৩৩৭, মোবাইল: ০১১৯৭-০২৫ ৬১৪;
  • মোল্লা পরিবহন, ঢাকা: মোবাইল: +৮৮০১৮১৯-০২৯ ৪৫৩, +৮৮০১৭২০-১৭২ ৮৭১ (মিরপুর), কুড়িগ্রাম: ☎ ০৫৮১-৬১৭৬২, মোবাইল: +৮৮০১৭১২-২১২ ০৬৬;
  • নাবিল পরিবহন, ঢাকা: ☎ ০২-৮১২৭৯৪৯, মোবাইল: +৮৮০১৭১৪-৮২৭ ৩৭৩ (আসাদগেট), কুড়িগ্রাম: ☎ ০৫৮১-৫২৪৭১, মোবাইল: +৮৮০১৮২৪-৯৮০ ৭১৯;
  • হানিফ এন্টারপ্রাইজ, ঢাকা: ☎ ০২-৯১৪ ৪৪৮২, ৮০১ ১৭৫০, ৯০০ ৩৩৮০, ৮১১ ৯৯০১, মোবাইল: ০১১৯৮-২২০ ০৫২ (শ্যামলী), ০১১৯০-১৮৮ ১৬৯ (গাবতলি);
  • কুড়িগ্রাম পরিবহন, মোবাইল: +৮৮০১৯২৪-৪৬৯ ৪৩৭, +৮৮০১৯১৪-৮৫৬ ৮২৬।
  • ঢাকা-কুড়িগ্রাম রুটে সরাসরি চলাচলকারী পরিবহনে আসার ক্ষেত্রে ভাড়া হলোঃ
    • এসি বাসে - ৭০০/- এবং
    • নন-এসি বাসে - ৩৫০/- - ৫০০/-।

রেলপথ[সম্পাদনা]

রাজারহাট উপজেলায় ১৬ কিলোমিটার রেলপথ এবং রাজারহাট রেল স্টেশন ও সিংগারডাবড়ীহাট রেল স্টেশন নামীয় দুটি রেল স্টেশন রয়েছে এবং জেলা শহর ও বিভিন্ন শহরের সাথে রেলপথে যোগাযোগ ব্যবস্থাও রয়েছে।

ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ট্রেনে সরাসরি, অথবা লালমনিরহাট অভিমুখী ট্রেনে রংপুরের কাউনিয়া এসে সেখান থেকে সড়ক পথে রাজারহাট আসা যায়। কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে প্রতিদিন একাধিক ট্রেন রাজারহাট - কাউনিয়া পথে যাতায়ত করে। ঢাকা – রাজারহাট/কাউনিয়া রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলো হলো:

  • ৭৭১ রংপুর এক্সপ্রেস (রবিবার বন্ধ) - রংপুর হতে রাত ০৮ টায় ছাড়ে ও ঢাকায় ভোর ৬টা ১৫ মিনিটে পৌছে এবং ঢাকা থেকে সকাল ০৯ টায় ছাড়ে ও রংপুরে সন্ধ্যা ৭টায় পৌছে;
  • লালমনি এক্সপ্রেস (শুক্রবার বন্ধ) - ঢাকা থেকে রাত ১০ টা ১০ মিনিটে ছাড়ে।

ঢাকা-কুড়িগ্রাম রুটে চলাচলকারী রেলে ঢাকা হতে কুড়িগ্রাম আসার ক্ষেত্রে ভাড়া হলো -

  • শোভন চেয়ার - ৫১৫ টাকা;
  • স্নিগ্ধা (এসি চেয়ার) - ৯৮৪ টাকা।

ট্রেন সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন:

  • কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন, ☎ ০২-৯৩৫৮৬৩৪,৮৩১৫৮৫৭, ৯৩৩১৮২২, মোবাইল নম্বর: +৮৮০১৭১১৬৯১৬১২;
  • বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন, ☎ ০২-৮৯২৪২৩৯;
  • ওয়েবসাইট: www.railway.gov.bd।

আকাশ পথে[সম্পাদনা]

রাজারহাটে কোনো বিমানবন্দর না-থাকায় এখানে সরাসরি আকাশ পথে আসা যায় না, তবে ঢাকা থেকে সরাসরি বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে সৈয়দপুর বিমানবন্দরের সাথে; ঢাকা থেকে সৈয়দপুর এসে সেখান থেকে সড়কপথে রাজারহাট আসা যায়। বাংলাদেশ বিমান, জেট এয়ার, নোভো এয়ার, রিজেন্ট এয়ার, ইউনাইটেড এয়ার - প্রভৃতি বিমান সংস্থার বিমান পরিষেবা রয়েছে ঢাকা থেকে সৈয়দপুর আসার জন্য।

বাংলাদেশ বিমানের একটি করে ফ্লাইট সপ্তাহে ৪ দিন ঢাকা-সৈয়দপুর ও সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে চলাচল করে; ভাড়া লাগবে একপথে ৩,০০০/- এবং রিটার্ণ টিকিট ৬,০০০/-। সময়সূচী হলোঃ

  • ঢাকা হতে সৈয়দপুর - শনি, রবি, মঙ্গল, বৃহস্পতি - দুপুর ০২ টা ২০ মিনিট;
  • সৈয়দপুর হতে ঢাকা - শনি, রবি, মঙ্গল, বৃহস্পতি - দুপুর ০৩ টা ৩৫ মিনিট।

এই সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেনঃ

    • ম্যানেজার, সৈয়দপুর বিমান বন্দর, মোবাইল - +৮৮০১৫৫৬-৩৮৩ ৩৪৯।

জল পথে[সম্পাদনা]

অপ্রচলিত মাধ্যম হিসাবে নৌপথ ব্যবহৃত হয়ে থাকে; তবে কেবলমাত্র স্থানীয় পর্যায় ছাড়া অন্য কোনো এলাকার সাথে, কিংবা ঢাকা থেকে বা অন্যান্য বড় শহর হতে সরাসরি কোনো নৌযান চলাচল করে না। অবশ্য, চরাঞ্চলে যোগাযোগের একমাত্র বাহন নৌযান। রাজারহাট উপজেলায় ৬৭ নটিক্যাল মাইল দীর্ঘ নৌপথ রয়েছে।

দর্শনীয় স্থান ও স্থাপনা[সম্পাদনা]

  • পাংগা রাজবাড়ি;
  • ঘড়িয়ালডাঙ্গা জমিদার বাড়ি;
  • কোটেশ্বর শিবমন্দির;
  • ফতে খা ও কালু খা কামান;
  • চান্দামারী মসজিদ;
  • সিন্দুরমতি দীঘি;
  • ব্যাপারীপাড়া শাহী মসজিদ;
  • চাকিরপাশার বিল;
  • সারালা বিল;
  • ঘড়িয়াল ডাঙ্গা বিল;
  • চতলা বিল;
  • নাখেন্দা বিল;
  • রাজার হাট জামে মসজিদ;
  • খানপাড়া জামে মসজিদ;
  • মেকুরটারী শাহী মসজিদ;
  • চতুর্ভুজ শিবমন্দির;
  • নাজিমখান উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৩০);
  • পাংগারাণী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৩৯);
  • রাজারহাট পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৪৯);
  • রতিরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (১৯৪০);
  • রাজারহাট আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (১৮৯৭);
  • রাজারহাট ফাজিল মাদ্রাসা (১৯৬৩);
  • ঠাঁটমারি বধ্যভূমি;
  • রেল সেতু;
  • পুটিকাটা মাজার শরিফ।

খাওয়া দাওয়া[সম্পাদনা]

‘সিদল ভর্তা’ এখানকার জনপ্রিয় খাবার, যা কয়েক ধরনের শুঁটকির সঙ্গে নানা ধরনের মসলা মিশিয়ে বেটে তৈরি করা হয়। এছাড়াও রয়েছে বিখ্যাত “হাড়িভাঙ্গা” আম, তামাক ও আখ। এখানে সাধারণভাবে দৈনন্দিন খাওয়া-দাওয়ার জন্য স্থানীয় হোটেল ও রেস্টুরেন্টগুলোতে সুস্বাদু খাবার পাওয়া যায়।

থাকা ও রাত্রি যাপনের স্থান[সম্পাদনা]

রাজারহাটে থাকার জন্য স্থানীয় পর্যায়ের কিছু সাধারণ মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। এছাড়াও সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় থাকার জন্য উন্নতমানের আবাসন সুবিধা পাওয়া যায় -